টি-শার্ট সম্পর্কে যা যা জানা দরকার

Posted By: Syed Maksud Uzzaman On: Sunday, April 1, 2018 Comment: 0 Hit: 2234

টি-শার্ট ছেলেদের ফ্যাশনে এ অনেক শক্ত জায়গা করে নিয়েছে। টি-শার্ট আমরা পড়তে পারি যেকোনো অনূষ্ঠানে, শার্ট এর বিকল্প হিসাবে, শার্ট এর নিচে, ব্লেজার এর সাথে, জিমে, বীচে অথবা বিছানায়। টি-শার্ট বেশ সবচেয়ে মজার ব্যাপারটা হলো এর ব্যবহার খুবই সহজ, এছাড়াও দামে কম, অনেক কম জায়গা নেয় এবং অনেক সহজলভ্য।

টি-শার্ট সম্পর্কে আপনার যা যা জানা দরকার

একটা মানুষ কিভাবে টিশার্ট পরিধান করে এটা দেখে তার সম্মন্ধে অনেক ধারণা পাওয়া যায়, যেমন ধরা যাক একজন টিশার্ট পড়েছে যেটা অনেক ঢিলাঢোলা, হাত অনেক খানি ধুলে রয়েছে, এমন ধরনের মানুষগুলো সাধারণত লুজার টাইপের হয়, কোনো কিছুতেই তার যেন আর আগ্রহ নেই। আবার যেই ব্যক্তি অনেক চাপা ধরণের টিশার্ট পড়েছে তাকে দেখলে মনে হবে ঠিক এর উলটো, সে যেন নিজের চিন্তায় অনেক বেশি মশগুল।

টি শার্ট এর পারফেক্ট ফিট:

পারফেক্ট ফিটটা পুরোপুরি নির্ভর করে আপনি আপনার কোন অঙ্গটিকে নিয়ে বেশি প্রাউড ফিল করেন। যেমন ধরেন,

আর্মস / বাহু: রোল করা হোক অথবা রেগুলার আপনার টিশার্ট এর হাতটি হতে হবে বাহুর মাঝামাঝি, দেখা যেতে হবে বাইসেপ এবং ট্রাইসেপ।

পেক্স এবং ঘাড়: স্লিম ফিট বেছে নিন, এই স্থান গুলো যেন ভালো করে বোঝা যায় খেয়াল রাখুন, যথেষ্ট পরিমানে বাতাস চলাচলের জায়গা রাখুন।

এবস এবং পেট: বুক যদি চওড়া হয় এবং পিটার দিকটা যদি হয় চাপা তাহলে টাপ্পার্ড কাটিং এর টিশার্ট বেছে নিন।

আপনি যদি পুরোপুরি নিশ্চিত যা হউন তাহলে যেভাবে কমফোর্ট ফিল হয় এমন সেপ বেছে নিন।

  • পারফেক্ট টিশার্ট আপনার হিপ্স এর মাঝামাঝি জায়গাতে শেষ হওয়া উচিত

  • শর্ট স্লিভ আপনার বাহুর মাঝ বরাবর থাকা উচিৎ

  • কমফোর্টেবল হওয়া উচিৎ

  • ঘাড়ের দিকটা ঘাড় বরাবর সমান থাকতে হবে

টিশার্ট এর রং:

সাদা: সাধারণত বেসিক ডেনিম এর সাথে পড়ার জন্য অথবা শার্ট এবং ব্লেজার এর নিচে পড়ার জন্য সাদা অনেক ভালো অপশন।

গ্রে / ধূসর: আপনি যদি ফর্সা অথবা উজ্জ্বল শ্যামলা তাদের জন্য এই কালার টা অনেক ভালো হবে, তবে আপনি যদি অনেক ঘেমে থাকেন তাহলে সাবধান থাকতে হবে কারণ  মাঝে ঘামের দাগগুলো অনেক স্পষ্ট হয়ে উঠে.

কালো: যদিও অনেক জনপ্রিয় রং টিশার্ট এর জন্য, কিছু এর কিছু নেতিবাচক দিক রয়েছে, যেমন অনেক তাড়াতাড়ি এটা ধূসর রং ধারণ করে, গরম এর সময় রৌদ্রে গেলে আরো বেশি গরম লাগে।

নেভি: কালোর কাছাকাছি টোন আছে এবং কালোর মতোই জনপ্রিয় নেভি কালারটি ছেলেদের কাছে।

কোন গায়ের রঙের জন্য কোন টি শার্ট :

ফর্সা: যারা ফর্সা তারা খুব সহজেই ডার্ক টাইপের রং গুলো সিলেক্ট করতে পারেন তাদের টি শার্ট এর জন্য, এতে তাদের গায়ের রং আরো বেশি ফুটে উঠবে।

শ্যামলা: বেশি কালারফুল টিশার্ট গুলো খুব সহজেই পড়তে পারেন। গায়ের রঙের কাছাকাছি রং গুলো এভোয়েড করতে পারেন।

টি শার্ট এর গলার ধরণ:

টি শার্ট এর কয়েক ধরণের গলা হয়ে থাকে, সব চেপে বেশি পাওয়া যায় গোল গলা এবং এর পরে ভি গলা।

ক্রিউ নেক / গোল গলা: আপনার যদি বুক ছোট হয়, আর যদি ঘাড়ের দিকটা একটু নামানো থাকে তাহলে আপনি গোল গলার টি শার্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

ভি গলা: এই গলার ধরণটি একটু কম উচ্চতা সম্পন্য মানুষের জন্য বেশ ভালো হয়, কারণ এতে আপনাকে একটু লম্বা লাগবে।

টি শার্ট এর কাপড়ের ধরণ:

সুতি / কটন: সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত টি শার্ট এর জন্য, সুতি অনেক বেশি আরামদায়ক, বিশেষ করে আমাদের মতো গরম প্রধান দেশের জন্য অনেক ভালো হয়।

মিক্সড: সুতির সাথে সাধারণত পলিস্টার মিক্স করে করা হয়, সাধারণত ৬০/৪০ অথবা ৬৫/৩৫ অনুপাতে মিলানো হয়। এই কাপড়ের সব চেয়ে ভালো দিক হলো কম কুচকায় এবং দীর্ঘ স্থায়ী হয়।

ভিসকোস: সাধারণত খেলার জন্য, একটু স্পোর্টি টাইপের টি শার্টে এই ধরণের কাপড় ব্যবহার করা হয়, এতে শোষণ ক্ষমতা অনেক বেশি থাকে।

আমাদের টি শার্ট কালেকশন চেক করেত এখনে ক্লিক করুন

Comments

Leave your comment